Thursday, December 2
Shadow

Tag: travel

রামসাগর দীঘি: দিনাজপুরের মানবসৃষ্ট বৃহত্তম জলাধার

রামসাগর দীঘি: দিনাজপুরের মানবসৃষ্ট বৃহত্তম জলাধার

Travel Destinations
বাংলাদেশে অনেক ঐতিহাসিক স্থান এবং স্মৃতিস্তম্ভ রয়েছে যা স্বতন্ত্র সংস্কৃতির। দিনাজপুর জেলায় আমরা কয়েকটি ঐতিহাসিক নিদর্শন, মনুষ্যসৃষ্ট সৃষ্টি ইত্যাদি দেখতে পারি। এর মধ্যে রামসাগর দীঘি অন্যতম একটি পর্যটন এলাকা। রামসাগর দীঘি দিনাজপুরের অন্যতম প্রাচীন স্থান। এটিকে বাংলাদেশের বৃহত্তম মানবসৃষ্ট জলাধার বিবেচনা করা হয়। এটি দিনাজপুর শহর থেকে প্রায় আট কিলোমিটার দক্ষিণে সদর উপজেলার তেজপুর গ্রামে অবস্থিত। হ্রদটি একটি উঁচু জমিতে অবস্থিত এবং গ্রামে পানীয় জলের অভাবের কারণে ১৭৫০ থেকে ১৭৫৫ সালের দিকে রাজা রাম নাথের রাজত্বকালে খনন করা হয়েছিল। হ্রদটি প্রকৃতির বৈভব এবং প্রাচীন ইতিহাসের মিশ্রণে ভরপুর।   নৈসর্গিক সৌন্দর্য রামসাগর হ্রদ সত্যিই প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের একটি পীঠস্থান যা প্রকৃতিপ্রেমীদের মুগ্ধ করবে। রামসাগর দীঘি প্রায় ৭৮ একরজুড়ে। এর পাড় লাল মাটি দ্বারা বেষ্টিত। তদুপরি, এই হ্রদের ...
সোনাভানের ধাপ: অতীতে যাওয়ার সিঁড়ি

সোনাভানের ধাপ: অতীতে যাওয়ার সিঁড়ি

Travel Destinations
সোনাভানের ধাপ - দিনাজপুর জেলার নবাবগঞ্জ উপজেলার পুটিমারা ইউনিয়নের খলসি শহরে অবস্থিত ঐতিহাসিক একটি পর্যটন আকর্ষণ। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের এনভায়রনমেন্টাল আর্কিওলজি গ্রুপের মতে, এটি 150 মি x 40 মি x 5 মি মাপের একটি ঢিবি, যা দিনাজপুর জেলার বৃহত্তম এবং প্রাচীনতম ঢিবিগুলির মধ্যে একটি।   অপূর্ব সোনাভান এটি একটি অগণিত ঐতিহাসিক ও সাংস্কৃতিক ভাস্কর্যের স্থান। এই স্থানের প্রতিটি কোণে গল্প আছে। মন্দিরের গোড়া থেকে চূড়া পর্যন্ত পোড়ামাটির অলঙ্করণ, ভেতরের ও বাইরের দেয়ালে তিনটি ভাস্কর্যের সাথে কিছু প্রাকৃতিক বস্তুর কারুকাজ করা হয়েছে। মহাভারত ও রামায়ণের বিশদ কাহিনী এবং অসংখ্য মাটির কাজের বিন্যাস এখানে ঘটেছে। সমসাময়িক সমাজজীবনকে ঘিরে কৃষ্ণের গল্প ও ছবি এবং জমিদার অভিজাতদের বিনোদনও প্রকাশিত হয়েছে পোড়ামাটির গায়ে। এই পোড়ামাটির কাজগুলির আশ্চর্যজনক প্রাচুর্য, কোমলতা এবং ভাস্কর্যগ...
ভাসমান পেয়ারা বাজার : দর্শনেই স্বাদ

ভাসমান পেয়ারা বাজার : দর্শনেই স্বাদ

Travel Destinations
বাংলাদেশের ঝালকাটি, বরিশাল ও পিরোজপুর জেলার সীমান্তবর্তী এলাকায় এশিয়ার সবচেয়ে বড় ভাসমান পেয়ারা বাজার ও পেয়ারা বাগানের চাষ করা হয়েছে। এর মধ্যে ঝালকাঠি থেকে প্রায় ১৫ কিলোমিটার দূরে ভিমরুলিয়া গ্রামে সবচেয়ে বড় ভাসমান পেয়ারার বাজার রয়েছে। ভাসমান পেয়ারা বাজারটি তিনটি বিক্ষিপ্ত খালের সংযোগস্থলে। এখানে সারা মৌসুমে (জুলাই থেকে আগস্ট) চাষিদের ব্যস্ততা লক্ষ্য করা যায়। ২০০ বছরের পুরনো মনোমুগ্ধকর এ ভাসমান পেয়ারা বাজার পর্যটকদের আকর্ষণে পরিণত হয়েছে। পেয়ারা ভর্তি নৌকা দেখা যায় এখানে। জলে ভ্রমণের সময়, নীল আকাশের পরিষ্কার পটভূমি আর চারপাশের সবুজ যেকোনও ব্যস্ত মনকে করবে শান্ত। নৌকার মাঝিরা সাধারণত বাগান মালিকদের হয়ে পেয়ারা বিক্রি করে। তারা খুব ভোরে তাজা ফল সংগ্রহ করে এবং গ্রাহক ও পাইকারদের জন্য খালে নৌকা নিয়ে অপেক্ষা করে। শত শত নৌকা একটি নির্দিষ্ট জায়গায় মিলিত হয়। স্থানটি ...
মণিপুরী রাজবাড়ী : ইতিহাসসহ একটি প্রাসাদ

মণিপুরী রাজবাড়ী : ইতিহাসসহ একটি প্রাসাদ

Travel Destinations
মণিপুরী রাজবাড়ী সিলেটের অন্যতম প্রধান আকর্ষণ। এটি মির্জাজাঙ্গাল সিলেট-সদর এলাকায় অবস্থিত এবং সিলেটের অন্যতম ঐতিহাসিক স্থান ও ঐতিহ্যবাহী স্থান হিসেবে বিশেষভাবে গুরুত্বপূর্ণ। এটি মণিপুরের রাজা গম্ভীর সিং এবং তার ভাইদের দ্বারা নির্মিত হয়েছিল। এই ঐতিহাসিক ভবনটি ১৮২২-২৪ খ্রিস্টাব্দে সিলেট মহানগরের মির্জাজাঙ্গাল রোডে তৈরি হয়।   মণিপুরী রাজবাড়ীর ইতিহাস ১৯ শতকে নির্মিত মণিপুরী রাজবাড়ী প্রাসাদটি সিলেটের মির্জাজাঙ্গালে অবস্থিত। রাজা চৌরজিৎ সিং, মারজিত সিং এবং গম্ভীর সিং সেই সময়ে মণিপুরী রাজ্যের তিন ভাই ছিলেন। তারা এখানে একটি প্রাসাদ নির্মাণ করে এখানে বসবাস করতেন। পরে চৌরজিৎ সিং এবং মারজিত সিং ভানুগাছ কমলগঞ্জ উপজেলা এলাকায় বসতি স্থাপন করেন, রাজা গম্ভীর সিং মির্জাজাঙ্গাল প্রাসাদে অবস্থান করেন। ১৮২৬ সালে বার্মার সাথে যুদ্ধের পর, ব্রিটিশ সরকারের সহায়তায়, রাজা গম্ভীর সিং এবং তার পর...
মাধবপুর লেক : চায়ের কাপ হাতে লেক দেখা

মাধবপুর লেক : চায়ের কাপ হাতে লেক দেখা

Travel Destinations
মাধবপুর লেক  বাংলাদেশের উত্তর-পূর্ব কোণে সিলেট বিভাগের মৌলভীবাজার জেলার কমলগঞ্জ উপজেলার মাধবপুর ইউনিয়নের পাত্রখাল এলাকায় অবস্থিত। এটি মৌলভীবাজার শহরের ৪০ কিলোমিটার দক্ষিণে এবং শ্রীমঙ্গল থেকে ১০ কিলোমিটার পূর্বে। বাংলাদেশের অন্যতম প্রধান পর্যটন গন্তব্য এটি। মাধবপুর হ্রদ প্রায় ৫০ একর এলাকা জুড়ে। ৩ কিলোমিটার চওড়া এটি। হ্রদের গভীরতা ৫০ থেকে ৩০০ মিটারের মধ্যে। হ্রদের দক্ষিণের পাহাড়গুলো ভারতীয় সীমান্তের কাছাকাছি। এখান থেকে ভারতীয় অঞ্চলের উঁচু-নিচু পাহাড় দেখা যায়। মাধবপুর লেকে নীল পদ্ম ও বেগুনি পদ্ম উপভোগ করা যায়। গোলপাতা ও তরমুজের ঝোপ সৌন্দর্য আরও বাড়িয়ে দেয়। ছোট ছোট পাহাড়ের ঝোপের মধ্যে অনেক ধরনের বনফুল রয়েছে। আছে উঁচুনিচু টিলা। মাধবপুর লেকের পানিতে বিভিন্ন প্রজাতির হাঁস, সরালি, পানকৌড়ি দেখা যায়। তদুপরি, হ্রদের আসল সৌন্দর্য দেখা যায় যখনই প্রবল বাতাস জলের দিকে প্রবা...
নৌকাবাইচ প্রতিযোগিতা : ময়মনসিংহের মোহনীয়তা

নৌকাবাইচ প্রতিযোগিতা : ময়মনসিংহের মোহনীয়তা

Travel Destinations
বাংলাদেশের কিছু ঐতিহ্যবাহী খেলার স্বকীয়তা রয়েছে। প্রাচীন কাল থেকে, এই বিখ্যাত খেলাগুলোর অস্তিত্ব শুধু আমাদের পরিচয়কে উন্নীত করে না বরং আমাদের প্রাচীন রীতির তাত্পর্যকে দৃঢ়ভাবে ঘোষণা করে। নৌকাবাইচ তাদের মধ্যে অন্যতম। জুন থেকে অক্টোবর মাস তথা বাংলা ক্যালেন্ডারের বর্ষা ও শরৎ ঋতুতে সাধারণত স্থানীয় গ্রামীণ জনগণ এই নৌকাবাইচের আয়োজন করে। বাংলাদেশের বেশ কিছু জায়গায় এই রেসের আয়োজন করা হয়। বাংলাদেশের ময়মনসিংহ জেলায় নৌকাবাইচ প্রতিযোগিতা উল্লেখযোগ্য। এই নৌকাবাইচ দীর্ঘ সময় ধরে হাজার হাজার দর্শকের জন্য আনন্দ নিয়ে আসছে। এটা খেলা হয় ব্রহ্মপুত্র নদে। ময়মনসিংহ, জামালপুর, টাঙ্গাইলের বিভিন্ন এলাকা থেকে নৌকা নিয়ে অংশগ্রহণকারীরা আসেন। নৌকাগুলি সরু ও ১৫০-২০০ ফুট পর্যন্ত লম্বা হয়। রেসের সূচনা নদীর একটি নির্দিষ্ট বিন্দু থেকে শুরু হয় এবং শেষ লাইনটি যেখানে অবস্থিত সেখানে শেষ হয়। যে নৌকা...
বাংলাদেশের পর্যটক : চাঁপাইনবাবগঞ্জের আল্পনা গ্রাম

বাংলাদেশের পর্যটক : চাঁপাইনবাবগঞ্জের আল্পনা গ্রাম

Travel Destinations
চাপাইনবাবগঞ্জের নাচলু উপজেলার ছোট্ট একটি গ্রাম টিকোইল। টিকোইল গ্রামের প্রতিটি দেয়াল একেকটি ক্যানভাস এবং এ গ্রামের মানুষজন শিল্পী। তাই সারাদেশে গ্রামটি আল্পনা গ্রাম নামে পরিচিত। মাটির ঘরের বাসিন্দারা গড়ে তুলেছেন নিজেদের শিল্পের রাজ্য। টিকোয়েলের মাটির ঘরগুলি সুন্দরভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে এবং মাটির ঘরগুলি ফুল ও লোকজ মোটিফে তাদের নিজস্ব শৈল্পিকতার কারণ। তারা তাদের হাতে তৈরি রং দিয়ে এই ‘আল্পনা’ আঁকেন। রঙটি মাটি এবং কিছু প্রাকৃতিক রঞ্জক দিয়েও তৈরি। গ্রামবাসীদের মতে, গৃহিণীরা চক, টারপেনটাইন তেল এবং গিরিমাটি নামের এক বিশেষ ধরনের মাটি দিয়ে মোটিফ আঁকতেন। কিন্তু এই সব উপকরণ দিয়ে আঁকা মোটিফ বেশিদিন টিকবে না। তাই শুকনো আঠার গুঁড়া, গিরিমাটি, পুরানো আমের খোসার গুঁড়া এবং কলার ডালপালা দিয়ে ৪-৫ দিন ভিজিয়ে রেখে সেই মোটিফ এবং প্যাটার্নগুলি আঁকা হয়। গ্রামবাসীরা এই মোটিফ দিয়ে তাদের ঘর...
নাফাখুম ভ্রমণ : বাংলাদেশের নায়াগ্রা

নাফাখুম ভ্রমণ : বাংলাদেশের নায়াগ্রা

Travel Destinations
বাংলাদেশের বান্দরবান জেলার নাফাখুম জলপ্রপাতটিকে তার প্রাকৃতিক সৌন্দর্য এবং রেমাইক্রি নদীর উপরের স্রোত থেকে 25-30 ফুট উপরে থেকে প্রবাহিত বিশাল জলপ্রপাতের জন্য "বাংলাদেশের নায়াগ্রা জলপ্রপাত" বলা হয়। এটি সাঙ্গু নদীর একটি উপনদী এবং নামটি মারমা ভাষা থেকে এসেছে যার অর্থ বাঘাইর মাছের জলপ্রপাত/ বামন গুঞ্চ (নাফা অর্থ দেশীয় মাছ এবং খুম অর্থ জলপ্রপাত)।   নাফাখুমের প্রধান আকর্ষণ বান্দরবান থেকে থানচি যাওয়ার রুটটি দেশের সবচেয়ে সুন্দর এবং রোমাঞ্চকর রুটগুলির মধ্যে একটি নাফাখুম । যা পাহাড়ের চূড়ায়। সৌন্দর্য, ভয় এবং উত্তেজনার এক মিশ্র অনুভূতি দেয়! পথে কয়েকটি স্টপেজ আছে। উপজাতিদের জীবনধারা পর্যবেক্ষণ করতে পারেন সেখানে। থানচি আসার পর পাহাড়ি নদী পেরিয়ে ২-৩ ঘণ্টার নৌকা ভ্রমণ এবং গভীর বনের নৈসর্গিক সৌন্দর্য আরও উত্তেজনা নিয়ে আসে। তৃতীয় পর্বের উচ্ছ্বাস শুরু হবে রেমাক্রি বাজার থেকে, যেখান থেক...
কুতুবদিয়া : নির্মলতা যেখানে মনোমুগ্ধকর

কুতুবদিয়া : নির্মলতা যেখানে মনোমুগ্ধকর

Travel Destinations
যখন জীবনের দৈনন্দিন একঘেয়েমি দ্বারা প্রশান্তি নষ্ট হয়ে যায়, তখন প্রত্যেকেই প্রকৃতির সৌন্দর্যে সমৃদ্ধ একটি নির্মল স্থান চায় যা মানসিকতার ক্ষত নিরাময় করে। কিন্তু কখনও কখনও কোথায় যেতে হবে তা নির্ধারণ করা কঠিন হয়ে পড়ে কারণ সমস্ত পর্যটন অঞ্চল দখল এবং ভিড়ের সাথে পরিপূর্ণ। কুতুবদিয়া দ্বীপ, একটি দূরবর্তী এবং স্বর্গীয় প্রাকৃতিক সৌন্দর্য এবং প্রশান্তি সমৃদ্ধ দেশের প্রাচীনতম দ্বীপগুলির মধ্যে একটি সেরা পছন্দ হতে পারে।   দর্শনার্থীদের জন্য আকর্ষণ কুতুবদিয়া সমুদ্র সৈকত: সমুদ্র সৈকতটি মাত্র 16 কিলোমিটার দীর্ঘ হলেও এখনও দূষণ এবং উপচে পড়া ভিড়ে পরিপূর্ণ হতে পারেনি। এভাবে জেলেদের প্রাকৃতিক জীবনযাপন, সারি সারি গাছের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য, বহু রঙের আকাশের সাথে সূর্যোদয় এবং সূর্যাস্তের অভূতপূর্ব দৃশ্য এবং লবণ চাষের সাথে যে কোনও দর্শনার্থী এক টুকরো শান্ত নির্জন জমি খুঁজে পেতে পারেন। ...
Staycations at Dhaka

Staycations at Dhaka

Travel Destinations
Staycations are a new trend when Dhakaites are going in for one day vacation Dhaka as the vast metropolis can be quite exhausting to the senses. This is perhaps best dealt with some quiet time, away from the bustle. With the scarcity of free time, it becomes imperative that residents find getaways that can be reached quickly, enjoyed for a while and allow for coming back to the city all within the day. As Bangladesh is predominantly a riverine country, it is no wonder that many such getaways are likely to be near rivers or ghats, those ever-present boat terminals tucked away in all villages, beside every stream. Mawa Ghat A favoured destination for many residents of Dhaka, this ghat is even less than 40 km away from the main city. Beside the River Padma, this ghat attracts diff...
error: Content is protected !!