Monday, July 15
Shadow

মশা তাড়ানোর যন্ত্র কী কাজ করে?

কয়েল, স্প্রে, লোশনের ব্যবহারে মশার উৎপাত কিছুটা কমলেও এসবের ক্ষতিকর প্রভাবে অ্যালার্জি ও ফুসফুসের নানা অসুখ তৈরি হওয়ার আশঙ্কা থাকে। তাই এসেছে নানা ধরনের ইলেকট্রিক মসকিউটো কিলার। মশা তাড়ানোর যন্ত্রের দরদাম জানাচ্ছেন ইসরাত জেবিন

মশা তাড়ানোর যন্ত্র : এলইডি মসকিউটো কিলার

এটি মূলত একটি ট্র্যাপ বা ফাঁদ। বিশেষ ধরনের আলো ব্যবহার করে মশা বা অন্য পোকামাকড়কে যন্ত্রের ভেতরে আসতে আকৃষ্ট করা হয়। আকৃষ্ট হয়ে মশা যন্ত্রের ভেতরের খাঁচায় ঢোকামাত্র বিদ্যুতায়িত হয়ে মারা যাবে। ছোট-বড় নানা ডিজাইনের এলইডি মসকিউটো কিলার পাবেন বাজারে। ৪০০-২০০০ টাকার মধ্যেই পাবেন।

মশা তাড়ানোর যন্ত্র : ইলেকট্রিক মসকিউটো কিলার ট্র্যাপ

ইলেকট্রিক মসকিউটো কিলার ট্র্যাপের ভেতর বিশেষ ধরনের লাইট ও পাখা থাকে। ঘরে থাকা মশা আলোতে আকৃষ্ট হয়ে যন্ত্রের কাছে যাওয়ামাত্র পাখার বাতাসের টানে ভেতরে ঢুকে যায়। বিভিন্ন ধরনের ইলেকট্রিক মসকিউটো কিলার ট্র্যাপ কিনতে খরচ হবে ব্র্যান্ড ও মানভেদে ৭০০-২৫০০ টাকা।

মশা তাড়ানোর যন্ত্র
মশা তাড়ানোর যন্ত্র

মশা তাড়ানোর যন্ত্র : ইলেকট্রনিক ইনসেক্টস কিলার

এটি ঘরের উঁচু ফার্নিচারের পাশাপাশি দেয়ালে বা মেঝেতেও রাখতে পারেন। এই যন্ত্রের ডুয়েল আল্ট্রাভায়োলেট লাইট মশার পাশাপাশি তেলাপোকা ও টিকটিকি ঘর থেকে দূর করে বলে দাবি করেন নিউমার্কেটের বিক্রেতা মো. শাহ আলম। এই যন্ত্রের দাম ২ হাজার ৫০০ থেকে সর্বোচ্চ ৫ হাজার টাকা পর্যন্ত হতে পারে।

মশা তাড়ানোর যন্ত্র : মসকিউটো রিপেলার

যন্ত্রটি বিশেষ ধরনের আল্ট্রাসাউন্ড তৈরি করে, যা মশার শরীরে কম্পন সৃষ্টি হয়। ফলে মশা দ্রুত ঘর থেকে পালায়। বৈদ্যুতিক এ যন্ত্রটি চার্জ দিয়ে কিংবা সরাসরি বিদ্যুতের সংযোগের মাধ্যমে চালানো যায়। দাম ১ হাজার থেকে ৩ হাজার টাকা পর্যন্ত হতে পারে।

কোথায় পাবেন মশা তাড়ানোর যন্ত্র

ঢাকাসহ সারা দেশেই এ ধরনের ইলেকট্রিক মসকিউটো কিলার পাওয়া যায়। রাজধানীর বায়তুল মোকাররম মার্কেট, গুলিস্তান স্টেডিয়াম মার্কেট, নিউমার্কেট, বসুন্ধরা সিটি শপিং মল, গুলশান ডিসিসি মার্কেট ১ ও ২ নম্বরে পেয়ে যাবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Please disable your adblocker or whitelist this site!

error: Content is protected !!