Thursday, December 2
Shadow

রামসাগর দীঘি: দিনাজপুরের মানবসৃষ্ট বৃহত্তম জলাধার

রামসাগর দীঘি দিনাজপুরবাংলাদেশে অনেক ঐতিহাসিক স্থান এবং স্মৃতিস্তম্ভ রয়েছে যা স্বতন্ত্র সংস্কৃতির। দিনাজপুর জেলায় আমরা কয়েকটি ঐতিহাসিক নিদর্শন, মনুষ্যসৃষ্ট সৃষ্টি ইত্যাদি দেখতে পারি। এর মধ্যে রামসাগর দীঘি অন্যতম একটি পর্যটন এলাকা।

রামসাগর দীঘি দিনাজপুরের অন্যতম প্রাচীন স্থান। এটিকে বাংলাদেশের বৃহত্তম মানবসৃষ্ট জলাধার বিবেচনা করা হয়। এটি দিনাজপুর শহর থেকে প্রায় আট কিলোমিটার দক্ষিণে সদর উপজেলার তেজপুর গ্রামে অবস্থিত। হ্রদটি একটি উঁচু জমিতে অবস্থিত এবং গ্রামে পানীয় জলের অভাবের কারণে ১৭৫০ থেকে ১৭৫৫ সালের দিকে রাজা রাম নাথের রাজত্বকালে খনন করা হয়েছিল। হ্রদটি প্রকৃতির বৈভব এবং প্রাচীন ইতিহাসের মিশ্রণে ভরপুর।

 

নৈসর্গিক সৌন্দর্য

রামসাগর হ্রদ সত্যিই প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের একটি পীঠস্থান যা প্রকৃতিপ্রেমীদের মুগ্ধ করবে। রামসাগর দীঘি প্রায় ৭৮ একরজুড়ে। এর পাড় লাল মাটি দ্বারা বেষ্টিত। তদুপরি, এই হ্রদের উত্তরে, উঁচু জমি খুঁজে পেতে পারি যেখানে পুরানো ভবনগুলির কিছু কাঠামো পাওয়া যাবে। স্থানীয়ভাবে দেব মন্দির বা বারোদুয়ারি এবং হাজারদুয়ারি নামে পরিচিত এবং সেইসাথে ১৭ বা ১৮ শতকের কাছাকাছি নির্মিত বলে মনে করা হয়। হ্রদটির চারপাশে একটি আকর্ষণীয় বন রয়েছে যা সরকার ২০০১ সালে জাতীয় উদ্যান হিসাবে ঘোষণা করেছিল। জঙ্গলযুক্ত অঞ্চলটি বিভিন্ন ধরনের গাছ, হরিণ, বুনো শুয়োর, নীল ষাঁড়, স্লথ বিয়ারের মতো অনেক প্রাণীর বাসস্থান দ্বারা সজ্জিত। আছে হায়েনাও। লেকটি পরিযায়ী পাখিদের জন্যও একটি নিরাপদ স্থান। হ্রদে বিভিন্ন মাছ ও মিঠা পানির কুমির রয়েছে।

মূলত, পর্যটকরা বিকেলে রামসাগর দীঘি দেখতে পছন্দ করেন কারণ সে সময় লেকটি আরও জাঁকজমকপূর্ণ দেখায়। সূর্যাস্তের দৃশ্যের সাথে পাখির কিচিরমিচির পর্যটকদের মুগ্ধ করে।

 

কিভাবে যাবেন রামসাগর দীঘি

দিনাজপুর জেলায় পৌঁছানোর পর শহর থেকে যে কোনও গাড়িতে করে রামসাগর দিঘীর উদ্দেশ্যে যাত্রা করা যায়। আবার ভ্রমণকারীরা যদি দাস মাইল থেকে একটি নসিমন ভাড়া নেন তাও ভালো। বারো মাইল নামের জায়গা থেকে ১০ মাইল দূরে এবং বোট পয়েন্টে যেতে ১২ মাইল পাড়ি দিতে হবে।

 

রামসাগর দীঘিতে কোথায় থাকবেন

দিনাজপুর তার আবাসন ব্যবস্থা উন্নত করেছে এবং ভ্রমণকারীরা শহরে পৌঁছানোর পরে বিশ্রামের জন্য ভাল কিছু জায়গা আছে। এমন কয়েকটি হোটেল হলো— আল রশিদ হোটেল, হোটেল ডায়মন্ড, হোটেল ইউনিক, পারজাতন হোটেল ইত্যাদি।

 

কী খাবেন

নিঃসন্দেহে দিনাজপুর মৌসুমি ফলের জন্য সুপরিচিত এবং গ্রীষ্মকালে সেই তাজা লিচু না খেয়ে কেউ ফিরে আসতে পারে না। সুতরাং, ভ্রমণকারীরা খাবার খুঁজে পেতে কোনও অসুবিধার মুখোমুখি হবে না কারণ এখানে ভাল খাওয়ার সুবিধা রয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!